Blog Single

24 Nov

গ্রাফিক্স ডিজাইন টিউটোরিয়াল পর্ব-০২

গ্রাফিক্স ডিজাইন ক্ষেত্র সমূহঃ

সাধারণত গ্রাফিক্স ডিজাইন যে দুটি সফটওয়্যার বেশি ব্যবহার হয় সে ‍দুইটি হল

১) Adobe Photoshop

২) Adobe Illustrator

যাদের কাছে নাই তারা ইনস্টল করে নিবেন।

এডোবি ফটোশপ

ফটোশপ কি?

ইমেজ এডিটিং এর ক্ষেত্রে এডবি ফটোশপকে বলা হয় ইন্ডাষ্ট্রি ষ্ট্যান্ডার্ড। মোট কথা হল ভিজুয়্যাল এমন কোন কাজ নেই যেখানে ফটোশপের প্রয়োজন হয় না। গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ফটোগ্রাফি, ভিডিও এডিটিং, অ্যানিমেশন, ভিজুয়্যাল ইফেক্টস সহ সকল ক্ষেত্রে ফটোশপ ব্যবহার অনিবার্য।

ফটোশপ ইন্টারফেইস

এবার জানবো ফটোশপ ইন্টারফেইস এর নামসমূহ এবং তাদের ব্যবহারবিধি।

photoshop-interface

যখনই ফটোশপ ওপেন করবো উপরোক্ত ছবির মতো দেখতে পাবো।

১) MAIN MENU : পর্দার উপরে তাকান আপনি মেনু বার দেখতে পাবেন, যা ফটোশপের সমস্ত প্রধান ফাংশন যেমন ফাইল, সম্পাদনা, চিত্র, লেয়ার, প্রকার, নির্বাচন, ফিল্টার, বিশ্লেষণ, 3D , দেখুন, উইন্ডো এবং সাহায্য বিদ্ধমান থাকে।

২) TOOLBAR : এটি একটি শিল্পীর কাজের টেবিলের মতো, টুলবারটি ফটোশপ সরঞ্জামগুলি ধারণ করে। এটি ফটোশপের ইন্টারফেসের বাম পাশের লম্বা, সঙ্কোচিত প্লেটটিতে রয়েছে। যা আপনি আপনার ছবিতে কাজ করার সময় ড্র, আঁকা, মুছতে এবং অন্য কিছু করতে পারবেন।

৩) PALETTES : প্যালেটস প্লেটগুলি এমন ফাংশন ধারণ করে যা আপনাকে চিত্রগুলি নিরীক্ষণ ও সংশোধন করতে সহায়তা করে। ডিফল্টরূপে, প্যালেটগুলি গ্রুপগুলিতে একত্রিত করা হয়। এই হল প্যালেট যা সাধারণত দৃশ্যমান হয়: রঙ, সামঞ্জস্য এবং স্তরসমূহ।

৪) IMAGE NAME : এটি মূলত আপনার ডোকুমেন্টের নাম কে বুঝায়। অনেকে ইহাকে ফাইল নাম ও বলে থাকি।

৫) IMAGE : এটাই আপনার মূল কর্ম ক্ষেত্র। যদিও এর বাংলা  অনেকেই ছবি বলে থাকি। আসলে এটা হচ্ছে আপনি যেখানে কাজ করবেন সেটা। হতে পারে ছবি এডিট করা, কোন ব্যাকগ্রাউন্ড তৈরি করা ইত্যাদি।

৬) COLOR :  এটি একটি প্যালেটস। ফটোশপে বিভিন্ন রং এর সামঞ্জস্যতা আনার জন্য ইহা ব্যবহার করা হয়।

৭) HISTORY : এই প্যালেটস হল ফটোশপের মাধ্যমে আপনি যে সমস্ত কাজ করবেন তার একটি লগ। ডিফল্টরূপে, HISTORY প্যালেটটি আপনার কাজের শেষ ২0 টি পরিবর্তন রেকর্ড তৈরি করে রাখে। প্রতিবার যখন আপনি ছবিটির পরিবর্তন করবেন, তখন একটি নতুন একটি HISTORY  প্যালেটে যুক্ত হবে।

৮) LAYERS : ফটোশপের সবচেয়ে শক্তিশালী বৈশিষ্ট্যগুলির একটি, কারণ কাজের পৃথক স্লাইস তৈরিতে ব্যবহার হতে পারে। লেয়ারের সাহায্যে, আলাদা আলাদা কোন কিছু আঁকতে, সম্পাদনা করতে, পেস্ট করতে এবং পুনঃস্থাপন করতে পারেন।

Related Posts

Leave A Comment